শিরোনাম:

গাংনীতে ব্যাভিচারের অভিযোগে যুবক-যুবতীকে শিকলে বেঁধে বিচারের চেষ্টা

গাংনীতে ব্যাভিচারের অভিযোগে যুবক-যুবতীকে শিকলে বেঁধে বিচারের চেষ্টা
image_pdfimage_print

মেহেরপুর নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭:

ব্যাভিচারের অভিযোগে যুবক-যুবতীকে একসাথে শিকল দিয়ে বেঁধে বিচারের চেষ্টা চলছে। মঙ্গলবার দিনগত গভীর রাতে যুবতীর বাড়ির পাশ থেকে গ্রামবাসী তাদের আটক করে। শিকল দিয়ে বৈদ্যুতিক খুঁটির সঙ্গে বেঁধে রাখে। ঘটনাটি ঘটেছে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার সহড়াবাড়ীয়া গ্রামে। অভিযুক্তরা হচ্ছে- সহড়াবাড়ীয়া গ্রামের ব্যবসায়ী রিপন হোসেন (৩০) ও একই গ্রামের কৃষক ফজলুল হকের মেয়ে রিনা খাতুন (১৮)। পুলিশ তাদের উদ্ধারের চেষ্টা করছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রেমের সম্পর্কের জের ধরে মঙ্গলবার রাত বারটার দিকে রিনার বাড়ির পাশে পাটকাঠির গাদার মধ্যে রিপন ও রিনাকে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করার দাবি করেন গ্রামবাসী। রাতেই তাদের দু’জনকে বৈদ্যুতিক খুঁটির সঙ্গে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা হয়। আটকের পর তাদেরকে মারধরও করেছে বলে অভিযোগ যুবক-যুবতীর। খবর পেয়ে এলাকার হাজারো উত্সুক নারী-পুরুষ ভিড় করেন। গ্রাম্য শালিসে দু’জনের বিয়ে ও জরিমানার প্রক্রিয়া শুরু হয় রাত থেকেই। তবে গাংনী থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে গ্রাম্য বিচার প্রক্রিয়া ভেস্তে যেতে বসেছে।
2জানতে চাইলে রিনা খাতুন বলেন, বছর খানেক আগে আমার বিয়ে হলেও সংসার ভেঙ্গে যায়। মাস খানেক আগে থেকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে রিপনের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক হয়। বিয়ের প্রলোভনে রিপনের ডাকে মঙ্গলবার রাতে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হই। এসময় প্রতিবেশীরা আটক করেছে। রিপনের সঙ্গে বিয়ে করে সংসার পাতার দাবি করেন রিনা।
এদিকে সাজানো ঘটনায় ফাসানো হচ্ছে বলে দাবি করেন রিপন হোসেন। তিনি অকপটে স্বীকারোক্তি দিয়ে বলেন, টাকার বিনিময়ে আমি শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে এসেছিলাম। কিন্তু রিনার পিতাসহ আশেপাশের লোকজন পরিকল্পিতভাবে আমাকে আটক করে মারধর করেছে।
সহড়াবাড়ীয়া গ্রামের বাসিন্দা ষোলটাকা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড সদস্য আজিজুল হক বলেন, বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছি। এজন্য গ্রাম্য মোড়লদের নিয়ে আলোচনায় বসেছি।
স্থানীয়দের দাবি, ব্যাভিচারের জন্য দু’জনের সাজা হওয়া উচিত। তবে গাছে বেঁধে রাখা মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের শামিল।
গাংনী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন বলেন, পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থল থেকে রিপনকে উদ্ধার করেছে। রিনাকেও উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

মন্তব্য করুন