শিরোনাম:

গাংনীর ধলা গ্রামে ললো হত্যা মামলার আসামিদের জমির ফসল তছরুপ

গাংনীর ধলা গ্রামে ললো হত্যা মামলার আসামিদের জমির ফসল তছরুপ
image_pdfimage_print

মেহেরপুর নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭:

মেহেরপুর গাংনী উপজেলার লক্ষিèনারায়ণপুর ধলা গ্রামের এনামুল হক ললো হত্যা মামলার আসামি পক্ষের লোকজনের ফসল তছরুপ করা হচ্ছে। বাদি পক্ষের লোকজনের বাধার কারণে বিনষ্ট হয়েছে ক্ষেতের পাট ও ধান। জোরপুর্বক কেটে নেয়া হয়েছে ১২ বিঘা জমির আউস ধান। লুটে নেয়া হয়েছে পুকুরের মাছ।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গেল ৩০ জুলাই নওপাড়া গ্রাম থেকে বাড়ি ফেরার পথে এনামুল হক ললো দুর্বৃত্তরদের অতর্কিত হামলায় গুরুতর আহত হন। পরদিন ভোরে রাজশাহী মেডিকেলে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় পরিবার থেকে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। উপজেলা কৃষকলীগ সভাপতি ও সাবেক ইউপি সদস্য আতিয়ার রহমানসহ তার পরিবার ও পক্ষের বেশ কয়েকজনকে আসামি করা হয়। এর আগের একটি সংঘর্ষ ও ললো হত্যা মামলার মধ্য দিয়ে গ্রামের পুর্ব বিরোধের বিষয়টি ঘুরে ফিরে সবার সামনে আসে। নিহত ললোর ভাই স্থানীয় ইউপি সদস্য বিএনপি নেতা আজমাইন হোসেন টুটুলের সঙ্গে আতিয়ারের বিরোধ দীর্ঘদিনের। রাজনৈতিক ও সামাজিক বিরোধের কারণে তাদের সম্পর্ক ছিলো দা-কুমড়ো। ললোর মৃত্যুর পর আজমাইন হোসেন টুটুল ও তার পক্ষের লোকজন প্রতিশোধের আশায় মত্ত। আজন্মা শত্রুদের শায়েস্তা করতে হিংস্র হয়ে ওঠে। হত্যা মামলার আসামি হয়ে আতিয়ার রহমানসহ তার পক্ষের লোকজন আত্মগোপন করে। টুটুল মেম্বর পক্ষের লোকজনের মারমুখি আচরণে আসামি না এমন লোকজনও বাড়িঘর ছেড়ে আত্মীয়-স্বজনদের বাড়িতে আশ্রয় নেন। ফলে বাড়ি ঘরের জিনিসপত্র ও ক্ষেতের ফসল অরক্ষিত হয়ে পড়ে।
অভিযোগে জানা গেছে, আতিয়ার রহমান পক্ষের লোকজনের প্রায় ৩০ বিঘা জমিতে পাট ছিলো। বেশ কয়েকজন পাট কেটে জাগ দিয়েছিলেন। বাধার কারণে গ্রামের ডোবা-নালায় জাগ দেয়া পাট পচে নষ্ট হয়ে গেছে। কর্তন করা হয়নি এমন কিছু জমির পাট ক্ষেতেই শুকিয়ে গেছে।
অপরদিকে ১০/১২ বিঘা জমির আউস ধান পেকে গেলেও তা কর্তন করতে পারেননি আতিয়ার পক্ষের লোকজন। আজমাইন হোসেন টুটুল মেম্বরের লোকজন ক্ষেত থেকে ধান কেটে তাদের বাড়িতে নিয়ে গেছে। এছাড়াও প্রায় ২০ বিঘা জমির আমন ধান বিনষ্ট করা হচ্ছে। ক্ষেত মালিক ধানের ক্ষেতে সার-কীটনাশক দিতে পারেননি। প্রয়োজনীয় পরিচর্যাও হয়নি। বাদি পক্ষের লোকজন এখন তাদের গরু দিয়ে ধান খাইয়ে দিচ্ছে। আব্দুল খালেকের পুকুরের মাছ লুটে নেয় বাদি পক্ষের লোকজন। ওই পুকুরে ৮/৯ লাখ টাকার পাঙ্গাস মাছ বিক্রি করা যেতো বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা।
অভিযোগের বিষয়ে জানতে চেয়ে সোমবার (১১ সেপ্টেম্বর) আজমাইন হোসেন টুটুলের মোবাইলে কল দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।
এতকিছুর পরেও মামলা করতে সাহস পাচ্ছে না ভুক্তভোগীরা। তবে বিষয়টি আরো খতিয়ে দেখে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বললেন গাংনী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন।
ভুক্তভোগীদের তথ্যমতে, টুটুল মেম্বর পক্ষের লোকজন রামদা ও লাঠিসোটা নিয়ে মাঠে ও গ্রামে পাহারা দিচ্ছে। তারা ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করার উপক্রম করেছেন। ফলে আসামি পক্ষের লোকজন স্বাভাবিক কাজকর্ম করতে পারছেন না। ক্ষেতের ফসল বিনষ্ট ও পরবর্তী ফসল আবাদ করতে না পেরে আসামি পক্ষের পরিবার খাদ্য সংকটে পড়েছে। পরিবারের উর্পাজনকারী ব্যক্তিরা বাড়িছাড়া হওয়ায় অর্থ সংকটে ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া ও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ক্রয় নিয়েও গভীর সংকট দেখা দিয়েছে। বাদিপক্ষের অব্যহত হুমকি ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে টহলের কারণে শংকায় জীবন-যাপন করছেন আসামি পক্ষের লোকজন।
আসামি পক্ষের কয়েকজন বলেন, আজমাইন হোসেন টুটুল বিএনপি নেতা। তার বংশের সব লোকই বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। গত বছর আওয়ামী লীগের একটি পক্ষের সঙ্গে লিঁয়াজো করে আওয়ামী লীগ বনে যায় আজমাইন হোসেন টুটুল। ফলে ওই গ্রামের প্রকৃত আওয়ামী লীগ পক্ষ আতিয়ার হোসেনের লোকজন রাজনৈতিক চাপের মধ্যে পড়ে। আওয়ামী লীগ সেজে টুটুল মেম্বর গ্রামের আধিপত্য বিস্তার শুরু করে। ক্ষমতাসীন দলের কয়েক ব্যক্তির নাম ভাঙ্গিয়ে স্থানীয়ভাবে আতিয়ার পক্ষের লোকজনের উপর চরম নির্যাতন শুরু করে টুটুল পক্ষের লোকজন।

মন্তব্য করুন