শিরোনাম:

গাংনী বিএম কলেজে ছাত্রলীগের অবস্থান ॥ অধ্যক্ষ পদ নিয়ে উত্তেজনা

গাংনী বিএম কলেজে ছাত্রলীগের অবস্থান ॥ অধ্যক্ষ পদ নিয়ে উত্তেজনা
image_pdfimage_print

মেহেরপুর নিউজ টোয়েন্টিফোরডটকম, ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭:

মেহেরপুর গাংনী টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট (বিএম) কলেজের অধ্যক্ষ পদ দিয়ে আবারো উত্তেজনা শুরু হয়েছে। অধ্যক্ষ পদের বহিস্কারাদেশ প্রত্যাহারের দাবি নিয়ে আবুল কালাম আজাদ স্বপন শনিবার কলেজে যেতে চাইলে প্রতিবাদ জানায় ছাত্রলীগ ও প্রাক্তন কমিটির সদস্যবৃন্দ।
আওয়ামী লীগ নেতা হত্যা মামলার আসামি হিসেবে কলেজ কর্তৃপক্ষ ২০১৪ সালে তাকে বহিস্কার করে। মিথ্যা তথ্য দিয়ে বস্কিারাদেশ প্রত্যাহারের অভিযোগ ছাত্রলীগের। অপরদিকে আবুল কালাম আজাদের অভিযোগ,শুধুমাত্র পেশিশক্তির বলে কলেজে ঢুকতে দেয়া হয়নি।
সকাল থেকে গাংনী উপজেলা ছাত্রলীগের বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা কলেজ ক্যাম্পাসে অবস্থান নেয়। কলেজে প্রবেশের রাস্তায় অবস্থান নিয়ে অধ্যক্ষ বিরোধী কথাবার্তা বলেন। দুপুর দুইটার দিকে কলেজ ছুটি হলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ক্যাম্পাস ছেড়ে যায়। কলেজে পাঠদান হয়েছে। তবে কলেজ ক্যাম্পাস ত্যাগ করার আগে দুপুরে খিচুড়ি রান্না করে খাওয়া-দাওয়া করেন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।
অধ্যক্ষ পদে পুনর্বহালের দাবিদার আবুল কালাম আজাদ স্বপনের অভিযোগ, ছাত্রলীগ অধ্যক্ষের চেয়ার পুড়িয়ে দিয়েছে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ছাত্রলীগ নেতারা বলেছেন, আমরা ওই কলেজে খিচুড়ি পিকনিক করেছি।
জানতে চাইলে গাংনী উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি তোহিদুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব হোসেন বলেন, ২০১৩ সালের ২৫ ডিসেম্বর রাতে বাঁশবাড়িয়া গ্রামের নুরুল আমিনকে কুপিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। নুরুল আমিন গাংনী পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। হত্যাকা-ের মূল অভিযুক্ত হিসেবে অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ স্বপনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা। পরে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তিনি বাঁশবাড়ীয়া গ্রামের বিএনপির প্রভাবশালী নেতা। নুরুল আমিন হত্যাকা- ও কলেজের অর্থ লোপাটের অভিযোগে কলেজ কর্তৃপক্ষ ২০১৬ সালের ৮মার্চ সরকারী কর্মচারী বিশেষ বিধানে তাকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করে। কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বহিস্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হয়েছে। তাকে যদি কলেজে প্রবেশ করতে দেয়া হয় তাহলে আবার বিশৃংখলা শুরু হবে।
এ বিষয়ে আবুল কালাম আজাদ স্বপন বলেন, আমি অধ্যক্ষ পদেই রয়েছি। আমার বিরুদ্ধে এখন কোন মামলা নেই। গত ২৩ জুলাই থেকে দায়িত্ব পালন করছি। কারিগরি শিক্ষাবোর্ড থেকে একটি এডহক কমিটি অনুমোদন দিয়েছে। এর প্রধান হচ্ছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার। আমার বহিষ্কারাদাশের বিরুদ্ধে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আবেদন করি। তদন্ত শেষে বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করেছে। নিয়ামনুযায়ী আমি কলেজে দায়িত্ব পালন করছি। কিন্তু ছাত্রলীগের বাধায় কলেজে প্রবেশ করতে পারিনি। তাঁরা পেশিশক্তির বলে অবৈধভাবে কলেজ ক্যাম্পাসে অবস্থান নেয়। বিষয়টি পরিচালনা পর্যদ (এডহক) সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানিয়েছি।
বাঁশবাড়ীয়া বিএম কলেজ পরিচালনা পর্যদের (এডহক) সভাপতির দায়িত্বে থাকা গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফ-উজ-জামান বলেন, আমি কয়েকদিনের জন্য ছুটিতে আছি। অফিসে ফিরে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

মন্তব্য করুন