শিরোনাম:

শান্তিপূর্ণভাবে ঈদ নামাজ সম্পন্ন ॥ রোহিঙ্গা মুসলমান নির্যাতন বন্ধে ফরিয়াদ

শান্তিপূর্ণভাবে ঈদ নামাজ সম্পন্ন ॥ রোহিঙ্গা মুসলমান নির্যাতন বন্ধে ফরিয়াদ
image_pdfimage_print

মেহেরপুর নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম, ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৭:

ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য এবং বিপুল উত্সাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে মেহেরপুর জেলায় পালিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আযহা। সকালে জেলার ৩৭৩টি ঈদগাহসহ বিভিন্ন মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। দো’আ মোনাজাতে মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমান নির্যাতন বন্ধে আল্লাহর কাছে ফরিয়াদ করেছেন মুসল্লিরা।
সকাল ৮ টার সময় মেহেরপুর শহরে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয় পৌর ঈদগাহ ময়দানে। ঈমামতি করেন মাও. আব্দুল হান্নান খান। এছাড়াও সকাল ৮ টা ১৫ মিনিটে ঈদের দ্বিতীয় বৃহত্ জামাত অনুষ্ঠিত হয় মেহেরপুর-চুয়াডাঙ্গা সড়কের পাশে অবস্থিত পুরাতন ঈদগাহ ময়দানে। ঈমামতি করেন মাও. রোকনুজ্জামান। সকাল ৯ টায় পৌর ঈদগাহ ময়দানে মহিলাদের ঈদের জামাতে ঈমামতি করেন মাও. আব্দুল করিম।
এদিকে সকাল ৮টায় গাংনী কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়। ঈমামতি করেন মাও. সাইফুল্লাহ। একই সময়ে দ্বিতীয় প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয় চৌগাছা কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে। ঈমামতি করেন হাফেজ মাওলানা রুহুল আমিন। ধানখোলা ঈদগাহ ময়দানে সকাল সোয়া ৮টায় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। ঈমামতি করেন মাও. আব্দুর রহিম। এ উপজেলার সবচে বড় জামাত অনুষ্ঠিত হয় মানিকদিয়া এগারপাড়া ঈদাগহ ময়দানে। এছাড়াও জেলার বিভিন্ন প্রান্তে উৎসব মুখর পরিবেশে ঈদুল আযহা উদযাপিত হচ্ছে।
বিভিন্ন ঈদগাহে দো’আ মোনাজাতে বিশ^ মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনা করে দো’আ করা হয়। বাংলাদেশের মানুষের উপর শান্তি বর্ষণের দো’আ করেন ঈমামগণ। তবে মোনাজাতে বারবারই উঠে আসে সম্প্রতি চলা মিয়ানমারের নৃশংস গণহত্যার বিষয়। মিয়ানমারের অসহায় মুসলমানদের রক্ষায় আল্লাহর রহমত বর্ষণের ফরিয়াদ করেন মুসল্লিরা।
এদিকে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য পশু কোরবানি শুরু হয়েছে। হযরত ইবরাহীম (আ.)-এর আত্মত্যাগ ও অনুপম আদর্শের প্রতীকী নিদর্শন হিসেবে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার বছর আগে থেকে শুরু হয় কুরবানির এই প্রচলন। আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের নির্দেশে হজরত ইবরাহীম (আ.) তার প্রাণপ্রিয় পুত্র হজরত ইসমাইল (আ.)-কে কোরবানী করতে উদ্যোত হয়েছিলেন। ওই অনন্য ঘটনার স্মরণেই ঈদুল আজহায় পশু কোরবানির এ রেওয়াজ চালু হয়। পশু কোরবানির মধ্য দিয়ে মনের মধ্যে ঘাপটি মেরে থাকা পশু কোরবানি হবে বলে আশা করছেন কোরবানির পশুর মালিকরা।

মন্তব্য করুন